ঢাকা, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:১৫:৫৫ || ৬ আশ্বিন ১৪২৬
Advertisement
৫৮১

দুই প্লেন অচলে যাত্রীদের দিনভর দুর্ভোগ

এভিয়েশন করেসপন্ডেন্ট

প্রকাশিত: ১১ মে ২০১৪   আপডেট: ২ জুন ২০১৪


দুই প্লেন অচলে যাত্রীদের দিনভর দুর্ভোগ 

এভিয়েশন করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম        

ঢাকা: ব্যবসায়ী এসএম ইলিয়াসের বাড়ি চট্টগ্রামে। ব্যবসার কাজেই তিনি ঢাকায় এসেছিলেন। কাজ শেষে রোববার বেলায় ১১টায় রিজেন্টে এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে ধরতে হাজির হন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে।

ঢাকা শহরের দুই ঘন্টা যানজট ঠেলে বিমানবন্দরে এসে দেখেন ফ্লাইট বিলম্ব। বলা হলো ১১টার ফ্লাইট ছাড়বে দুপুর ১২টায়। এরপর একটা, তিনটা এভাবে সময় গড়িয়ে চললো। কিন্তু ফ্লাইটের আর খোঁজ নেই। এক পর্যায়ে ফ্লাইট সূচি জানতে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের কোনো কর্মকর্তাকেই পাওয়া গেল না শাহজালালের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে। এভাবে সারাদিনই তার কাটল বিমানবন্দরে। অগত্য বিকেলে বিকল্প উপায়ে ঢাকা ছাড়লেন তিনি।

নিজের এই দুর্ভোগ সম্পর্কে এসএম ইলিয়াস বাংলানিউজকে, ‘আমি একজন ব্যবসায়ী। ব্যবসার কাজ সেরে দ্রুত আবার চট্টগ্রামে ফিরতে হবে বলেই প্লেনের টিকেট কেটেছিলাম। অথচ সারাদিন ফ্লাইটের জন্য বিমানবন্দরে বসে থাকতে হলো। রিজেন্ট এয়ারওয়েজের    চরম দায়িত্বহীন আচরণের কারণেই একদিনে আমার ব্যবসার অনেক ক্ষতি হয়ে গেল। তারা যদি প্রথমেই সমস্যাটি যাত্রীদের জানিয়ে দিতেন তাহলে অন্য কোনো এয়ারলাইন্সের চলে যেতে পারতাম।’

১১টার ফ্লাইটের আরেক যাত্রী ব্যবসায়ী আহমেদুল হক। ব্যবসার কাজে সপ্তাহে দুই থেকে তিনদিন তাকে চট্টগ্রামে যেতে হয়। তিনিও সময় বাঁচাতেই আকাশপথে যাতায়াত করে থাকেন। আহমেদুল হকেরও একই ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে রোববার। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘প্লেনে অনেক বেশি টাকা দিয়ে টিকেট কেটে আমরা যাতায়াত করি সময় বাঁচাতে। অথচ রিজেন্টের অপেশাদার আচরণের কারণে একটি দিন আমার নষ্ট হয়ে গেল। তিনি প্রশ্ন করেন তার এই ক্ষতির মূল্য কে দেবে? বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ দেবে নাকি রিজেন্ট দেবে। আসলে যাত্রীদের এই দুর্দশা দেখার জন্য কেউই নেই।’   

সর্বশেষ জানা গেছে রিজেন্টের বেলা ১১টার ঢাকা-চট্টগ্রামের এই ফ্লাইটটি রাত ৮টায় ঢাকা ছাড়ে। বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, রিজেন্টের বহরে চারটি উড়োজাহাজ রয়েছে। এর মধ্যে অভ্যন্তরীণ রুটের জন্য দুটি ড্যাশ ৮ উড়োজাহাজের একটি এক মাসের বেশি সময় ধরে অচল। বাকি উড়োজাহাজটিও যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে প্রায়ই বসে যাচ্ছে। কোনো রকমে জোড়াতালি দিয়ে মেরামতের পর আবার তা আকাশে উড়ছে। আবারও অচল হচ্ছে। এভাবে চলছে ড্যাশ ৮। বাকি দুটি বোয়িং ৭৩৭ এর একটি গত দিনদিন ধরে চট্টগ্রামে বিকল হয়ে পড়ে আছে। বোয়িং ৭৩৭ এর স্টার্টার কাজ করছে না। ঢাকা থেকে প্রকৌশলী গিয়ে তা মেরামত করতে পারেনি।     

এ অবস্থায় রিজেন্টের অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শিডিউল দুটিই ভেঙে পড়েছে। উড়োজাহাজে বিকলের কারণ রোববার অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট শিডিউল পুরোপুরি ভেঙে পড়ে। একদিন চট্টগ্রাম থেকে ব্যাংককের ফ্লাইট ১০ ঘন্টা পিছিয়ে দেওয়া হয়। রিজেন্টের ৫ মে ঢাকা-কুয়ালালামপুরের ফ্লাইট একদিন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে, ৬ মে কুয়ালালামপুরের ফ্লাইট ৭ মে করা হয়েছে।

বিগত এক মাসে বহুবার অচল হয়েছে রিজেন্টের উড়োজাহাজ। এর মধ্যে উড়োজাহাজের নিজস্ব রাডার (উড়োজাহাজের সংঘর্ষ এড়িয়ে চলতেই রাডার ব্যবহৃত হয়) ছাড়া  সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে ফ্লাইট করা, চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে যাওয়ার পথে ৩০ জন যাত্রীর প্রাণ অল্পের জন্য রক্ষা পাওয়া ছিল অন্যতম ঘটনা। বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।  

বেবিচকের একটি সূত্র জানায়, মূলত পুরনো উড়োজাহাজ ব্যবহার করায় রিজেন্ট এয়ারওয়েজ বারবার যান্ত্রিক ত্রুটিতে পড়ছে। তাছাড়া পুরনো উড়োজাহাজে যেভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করতে হয় তাও করা হচ্ছে না। একারণেই বারবার অচল হচ্ছে রিজেন্টের উড়োজাহাজ।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) পরিচালক (ফ্লাইট সেফটি) উইং কমান্ডার নাজমুল আনামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, ‘দেশের বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলোকে আমরা বিভিন্নভাবে ছাড় দেওয়ার চেষ্টা করছি। এরপরেও এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষের কমিটমেন্টের অভাবে যাত্রীদের সঠিক সেবা দেওয়া যাচ্ছে না।’ তিনি এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষকে আরো পেশাদারি আচরণের পরামর্শ দেন।   

বাংলাদেশ সময়: ০১১৪ ঘন্টা, মে ৫, ২০১৪   
আইএইচ/       


এই বিভাগের আরো খবর